র্হোসে লুইস বোর্হেস এর কবিতা | মিহিন্দা




মূল: র্হোসে লুইস বোর্হেস
ভাষান্তর: কায়েস সৈয়দ



যেকোনো মৃত্যুর জন্য অনুশোচনা


স্মৃতি ও আশা মুক্ত
সীমাহীন, বিমূর্ত, প্রায় ভবিষ্যৎ
মৃত দেহ নয় কেহ: এটা মৃত্যু
মরমী দেবতার মতো
যাদের তারা জোর দিয়েছিলো
বৈশিষ্ট্য নেই তার কোনো
মৃত ব্যক্তি কেউ নয় সর্বত্র
পৃথিবীর ক্ষতি ও অনুপস্থিতি ছাড়া কিছু নয়
আমরা ছিনিয়ে নিয়েছি এর সব
ছেড়ে যাইনা আমরা এর একটি বর্ণ, একটি উচ্চারণ:
এখানে বাগান যা এর চোখকে আর গ্রহণ করে না
ওখানে ফুটপাত যেখানে এটি জাগিয়ে রাখে তার আশা
এমনকি আমরা কি ভাবছি
এটি তা ভাবতেও পারে
আমরা আমাদের মধ্যে বিভক্ত হয়েছি, চোরের মতো
রাত্রি ও দিনের ধন।



সমাপ্তি


তারা আমাকে ক্রুশবিদ্ধ করলো। আমাকে বিদ্ধ হতে হবে পেরেক।
তারা আমাকে পানপাত্র দিলো। আমাকে হতে হবে হেমলক।
তারা আমাকে ঠকায়। আমাকে হতে হবে মিথ্যা।
তারা আমাকে জীবন্ত পোড়ায়। আমাকে হতে হবে নরক।
সব জিনিসই আমার খাবার।
মহাবিশ্বের যথাযথ ওজন। আনন্দ। অপমান।
আমাকে কী ক্ষত-বিক্ষত করেছে নেই তার কোনো ন্যায্যতা প্রতিপাদন।
আমার ভাগ্য অথবা দুর্ভাগ্য যায় আসে না তাতে কিছুই।

আমি কবি।



কারণসমূহ


সূর্যাস্ত, দিনগুলো ও প্রজন্ম
কোনটাই ছিলো না প্রথম
জলের সতেজতা আদমের গলায়
সাজানো-গোছানো জান্নাত
পাঠোদ্ধার করে চোখ আঁধার
নিচে নেকড়েদের ভালোবাসা
কথা। ষড়মাত্রিক। আয়না
হট্টগোল আর গর্বের টাওয়ার
ক্যালডিয়ার অধিবাসীর চোখে পড়া চাঁদ
গঙ্গানদীর অগণিত কালপরিমাপক মুহূর্ত
প্রজাপতি ও চুয়াঙ জু তাকে স্বপ্নে দেখায় যা
দ্বীপগুলোতে সোনার আপেল
বিচরণের গোলকধাঁধাঁয় পদক্ষেপ
পেনেলোপের অনন্ত আবরণ পর্দা
স্টোয়িকদের বৃত্তাকার সময়
মৃত-মানুষের মুখে কয়েন
দাড়িপাল্লায় তরবারির ওজন
জলঘড়ির জলের প্রতিটি ফোটা
ঈগল। স্মরনীয় দিন। সৈন্যবাহিনী
ফার্সালসের সকালে স্বেচ্ছাচারী সিজার
পৃথিবী জুড়ে ক্লেশের ছায়া
পার্সিয়ানদের বীজগণিত ও দাবা
দীর্ঘ অভিপ্রয়াণের পদচ্ছাপ
রাজ্যের তরবারির বিজয়
নিরলস কম্পাস। উন্মুক্ত সমুদ্র
স্মৃতিতে ঘড়ির প্রতিধ্বনি
কুঠার দিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করলেন রাজা
অকল্পনীয় ধূলো যা কিনা ছিলো সৈন্যবাহিনী
ডেনমার্কে নাইটিঙ্গেলের কণ্ঠস্বর
ক্যালিগ্রাফারের সূক্ষ্ম রেখা
আয়নায় আত্মঘাতীর মুখ
জুয়ার তাস। লোভাতুর সোনা
মরুভূমিতে মেঘের রূপ
ক্যালিডোস্কোপের প্রতিটি শৈল্পিক সজ্জা
প্রতিটি আক্ষেপ, প্রতিটি কান্না
পরিষ্কার করা হয়েছিলো এ সমস্ত জিনিস
নিবিরভাবে, যাতে মিলিত হতে পারে আমাদের হাত।



গুনার থরগিলসন


সময়ের স্মৃতি
তরোয়াল ও জাহাজে পূর্ণ
আর সাম্রাজ্যের ধূলিকণা
আর হেক্সামিটারের গুঞ্জন
আর যুদ্ধের সুউচ্চ ঘোড়াগুলো
আর চিৎকার ও শেক্সপীয়ার

আমি সেই চুমুটি মনে করতে চাই
আমাকে যেই চুমু দিতে তুমি আইসল্যান্ডে।




আত্মহত্যা



রাতে একটি তারাও বাকি থাকবে না
থাকবে না আর রাত
আমি মরে যাবো এবং, আমার সাথে
অসহনীয় মহাবিশ্বের ভার
মুছে ফেলবো পিরামিড, পদকগুলো
মহাদেশ ও মুখগুলো
মুছে ফেলবো জমে থাকা অতীত
বানাবো ইতিহাসের ধুলো, ধুলোবালি
এখন আমি তাকিয়ে আছি চূড়ান্ত সূর্যাস্তের দিকে
শুনছি পাখির শেষ ডাক
কারো কাছেই অর্পণ করছি না আমার অসারতা।




Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন