শঙ্খচূড় ইমাম এর কবিতা | মিহিন্দা



সামান্য অসুখ সরাও



এমন উসকে থাকার ত্যাগে—
আমরাও আনডেডে আক্রান্ত
যেন আয়ুর চেয়ে নদী দীর্ঘ হয়ে যাওয়ার উড়াল।

বৃহৎ অই যাত্রার চাকামুখ দূরে
যে সমস্ত সৌখিন আভারণ
বিভক্তের একতাবোধে হ্রেষার সূত্র ধরে
উন্মুক্তে দেখে ফেলেছে সীমানা
তার সকল প্রস্তুতে আমরা এক একটি ফার্মেসি
যেখানে বিক্রি হচ্ছে দাগ ও দানাযুক্ত শস্য
এমনকি উজাড় উজাড় বনের হৃদয়

বনে বেণী ভেঙেছে—যেন সামান্য অসুখ রেখে
মাঝ পথ দিয়ে—
হেঁটে হেঁটে চলে যায় অই শ্রেণির দিকে।
যেতে হয়, যেখানে তোমরা তোমাদের পরিসংখ্যান
স্মরণ করিয়ে নেও; আর অই সমস্ত আভারণ
ভাঁজ খুলে বেরিয়ে যায় প্রদর্শনে—

আদতে এটি নতুন বেণী নয়;
সামন্য সংযোগে অসামান্য সংখ্যা
যেহেতু গণনায় বাহিরে থেকেই—
ভেতরে থাকার জরায়ু!

যখন প্রোথিত হয় প্রার্থনা
তাতে হৃদয় সমেত শ্বাসের নিক্ষেপে
কতটুকু সমবায় সুর ভেসে যায়?
যেখানে তাদের হর্ণ-ই জরুরী!

মানুষকে মানুষ ঘর শিখিয়ে দেয়
এমন সংক্রমণে পৃথিবীর সকল ঘর
চারদিকে ছড়িয়ে পড়ার দায়
বাহিরকে যারা দিয়ে আসছে
তারা মূলত অই শ্রেণির ফুলকি ফোটানোর উৎস!

নিয়মে সন্ধ্যা আসবে বলেই
রোজ সূর্য ওঠে নিয়মে
মানুষ এমন গণিত দেখেও
তাকিয়ে থাকে নিয়মের দিকে—

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন