চয়ন সরকার এর কবিতা | মিহিন্দা



একটি চাঁদের অপমৃত্যু


কিছু বিচ্ছিন্ন বৃষ্টি জীবনে আলো নিভিয়ে এঁকে যায় নির্মম অন্ধকারের মানচিত্র ,
ভোরে সূর্যের আলোয় তাপ নেয় ভেজা চোখ ।
একটা প্রবল ঝড়ে ভেঙ্গেচুরে ছিন্নবিন্ন হৃদয় , ভয়ে বিপন্ন পাখিটা ডানা ঝাপটায় বুকে।

সারারাত রুদ্রের সাথে মদ্যপান, সিগারেট হাতে জীবনের ফুটপাতে দাঁড়িয়ে বোবা চিৎকার ----
ঈশ্বর মৃত্যু চাই, মৃত্যু!

ভুল ভালবাসার অনুতাপের অগ্নিগিরির লাভাস্রোতে গলে যায়
স্বপ্ন - ইচ্ছা -স্মৃতি-প্রেম -ভালোবাসা।

প্রিয়তার প্রত্যাখ্যানে খসে যায় নক্ষত্র, ঝরে যায় গোরস্থানের একমাত্র গোলাপটি ,নৈঃশব্দ্যে ছেড়ে যায় হাতে রাখা প্রিয় হাতটি ,
প্রকৃতিকে বরণ করতে হয় ঘ্ৰাণহীন ফুল, ছায়াহীন বৃক্ষ, স্রোতহীন নদী, আর্তনাদ ,দীর্ঘশ্বাস, রক্তপাত এবং একটা লাশ ।
অনেক বছর হয় ধ্বংসস্তূপ বুকে নিয়ে সারারাত জেগে থাকি একা ,
তাহলে কি এখনো ভালবাসি ? এখনো বুকে অপেক্ষা পুষি ?
একদিন পৃথিবীকে দিয়ে যাবো আমার লালিত সব ইচ্ছা, শেষ চিঠিতে প্রেয়সীকে 'প্রিয়' না লিখতে পারার ব্যর্থতা ,
দিয়ে যাবো একটা সবুজ কবর, একটি তাঁরার নিখোঁজ খবর, একটা ঝুলানো দেহ,
অথচ কথা ছিলো একসঙ্গে মৃত্যু ছোঁব, পাশাপাশি কবর হবো।


Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন