অর্বাচিন আব্দুল্যাহ এর কবিতা | মিহিন্দা




ব্যাধি



প্রবল ঘুমের ঝাঁকুনিতে আমার দু-চোখ কাঁপে,
তন্দ্রার ঘোরে আমি দিশেহারা হয়ে তোমায়
খুঁজে বেড়াই,
একদল চিঠি এসে আমার ক্লান্ত দেহে থুবড়ে পড়ে
এলোমেলো হয়ে-
আমি বুঝতে পারি এ চিঠি তোমার, ভুল করেই লিখেছিলে
আমাকে;এক ভুল রাতে।
সবগুলো চিঠিই অপূর্ণ,
কোনটায় ঠিকানা নেই,
কোনটায় নেই কোন সম্বোধন,
কিছু চিঠিতে এলোমেলো কথার বিক্ষেপণ,
এমনও কিছু চিঠি আছে- যেগুলোতে একটি শব্দে লিখা,
একটি ফুলের নাম।

একটি চিঠিতে তুমি লিখেছ-
''বুভুক্ষু এক প্রজন্মের কথা লিখতে গিয়ে
পথ হারিয়ে লিখা শুরু হলো প্রণয়ের,
প্লেগের মতো প্রণয় একটি সংক্রামক ব্যাধি
শরীরে আর আত্মায় জখম করে, বেরিয়ে
আসে রক্তের দলা হয়ে।মানুষের ক্ষতবিক্ষত
কামড়ানো দেহের মতো প্রতিনিয়ত নষ্ট হয়
প্রজন্মের হাহাকার। এ কথা লিখতে যতটুকু
শক্তি দরকার তার সবকিছুই অনুপস্থিত।
সেহেতু হারামজাদা অন্ধ কোবিদের মতো
প্রণয় নিয়ে ধস্তাধস্তি করাটাই সুখকর।"

অযত্নে লিখা এতোসব কথা ধুলোপড়া স্মৃতির মতো
নড়েচড়ে উঠে,হিংস্রতায় কাঁপিয়ে তোলে চারপাশ।
এতোসব ঘুমের রোগ আমাদের কবে সেরে উঠবে?
তুমিই বলো,ভেনাস!


Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন