মাহাথীর শামস পূষণ - এর কবিতা | মিহিন্দা

 




১.

জীবন লেপ্টে যায় সম্মোহনী,
আমার শরীরে বোধয়,
সসীম নিক্তির পাপ!
আমি,আমার ঈশ্বর কোথায়?
আমাকে শীতার্ত করে দেয়
বরফে ভেসে থাকা এসব  কথা
শরীরকে  বিশ্লিষ্ট করে দেয়
আচ্ছন্ন  করে রাখে।
চোখ নেশাতুর করে দেয়।
প্রজাপতির ডানায় ডানায়
আমি ফরমান দিয়েছি,
উড়ে বেড়ানোর সম্মান,
বদল আনার ফরমান
একটা আদরের ফরমান।





ওসব ট্রাস,গার্বেজ ধুয়ে যাক
কতগুলো দুঃখ ধেয়ে চলে রাস্তার যানে
 আংশিক আকাশে  উড়ে
আমি পথে  বদলে দেই
সব নাম না জানা জঞ্জাল।



ওসব ট্রাস,গার্বেজ ধুয়ে যাক।
 আমি কিসের জন্য খুলছি চোখ!
বুজছি ভেতর আমার
 শুধু স্তব্ধতায়-
তুমি কেমন আছো?
বাতাস জানিয়ে দাও
কিসের লোভে আমি কষ্ট ফেলে দেই!



ভাবি আমি সাইভার আকাশে
ভাইরাস হাসছে চুপিচুপি,
কবে কার সেলফোনে দেব ঢু,
আমি কার টেক্সট খুঁজি
আমি স্কিটসৌফফ্রেনিক।
তোমার ঠিকানাটা আমি 
কবেই,সত্যই ভুলে গেছি।




মাথা থেকে কিছুই আসছেনা
মগজ -রক্তে নাগরিক তিক্ততা,
একরাশ শিশির হয়ে আমার শরীরে কে?
এতোবার আড়ালে গিয়েও ফিরে যাইনি,
ফিরে,যাইনি বলেই  হয়ত আজ বলি
বুকের পশমে  মেঘের মতো ভার,
সেই ভারে আমার জীবন,যৌবন।



কভার : Edvard Munch


Post a Comment

أحدث أقدم